বান্দরবানের “সাঙ্গু রিজার্ভ ফরেষ্ট” ধংসের মূলে পিসিজেএসএস

ক্রাইম নিউজ সার্ভিস, বান্দরবান প্রতিনিধি: বান্দরবানের থানচি উপজেলায় অবস্থিত জলবায়ু ও প্রাকৃতিক ভারসাম্যতার ধারক বান্দরবানের “সাঙ্গু রিজার্ভ ফরেষ্ট” ধংসের ষরযত্রের লিপ্ত হচ্ছে পিসিজেএসএস। বডার গার্ড বাংলাদেশ (বিজিবি) গোয়েন্দা শাখার সৌজন্যে তথ্যটি জানতে পেরে পার্বত্য মন্ত্রণালয়ের প্রতি মন্ত্রী বীর বাহাদুর উশৈসিং এর নির্দেশে জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান ও বান্দরবান পুলিশ প্রসাশনের সহায়তায় বন বিভাগ উক্ত এলাকায় অভিযান পরিচালনা করার কথা জানান।

কিন্তু বন বিভাগের থানচি রেঞ্জের রেঞ্জ কর্মকর্তা মীর আহম্মদ পুলিশ ও বিজিবিকে সাথে না নিয়ে গত ১৬/৮/২০১৬ বন ধংসকারী চসিংমংকে নিয়ে ঐ এলাকায় গিয়ে মাত্র ৫৬ টুকরা (৪২০ঘন ফুট) কাঠ জব্দ দেখান। পরের দিন ১৭/৮/২০১৬ ইং তারিখ থানচি থানার উপ পরিদর্শক এখলাস উদ্দিনের নেতৃত্বে পুলিশ ও বড় মদক ক্যাম্পের ক্যাম্প কমান্ডারের নেতৃত্বে বিজিবি যৌথ আভিযান পরিচালনা করে প্রায় ৩০০০ (তিন হাজার) ঘনফুট মূল্যবান গর্জন কাঠ জব্দ ও আব্দুল মালেক নামের এক ব্যক্তিকে আটক করতে সক্ষম হয়।

জেএসএস বিপুল পরিমান অর্থের বিনিময়ে অস্ত্রগুলো কিনে রাখার চেষ্টা চালাচ্ছে
জেএসএস বিপুল পরিমান অর্থের বিনিময়ে অস্ত্রগুলো কিনে রাখার চেষ্টা চালাচ্ছে

থানচি থানার উপ পরিদর্শক এখলাস উদ্দীন ক্রাইম নিউজকে জানান, আটককৃত ব্যক্তিকে জিঞ্জাসাবাদে সে ভাইস চেয়ারম্যানের গাছ কাটার লেবার বলে স্বীকার করে।

ক্রাইম নিউজ সার্ভিস‘র প্রতিনিধি সরজমিনে উক্ত এলাকা ঘুরে জানতে পারে যে, জেএসএস থানচি থানার সভাপতি ও উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান চসাথোয়াই মারমা (পকসে) ও রেমাক্রী উনিয়নের জেএসএস সভাপতি চসিংমং মারমা‘র নির্দেশে স্রংগং পাড়ার কার্বারী ক্যশৈপ্রু মারমা সহায়তায় প্রায় ৬০/৭০ জনের লেবার দল পাড়ার নিচে ইয়াংরে ঝিড়ির একটু উপরে লগনা ঝিড়ি এলাকায় অবৈধ ভাবে গর্জন কাঠ সংগ্রহ করছে।

FB_IMG_1464237454227

নির্ভরযোগ্য গোয়েন্দা তথ্যে জানা গেছে যে, মায়ানমারের বিচ্ছিন্নতাবাদী সংগঠন এ,এল,পি ২০১৫ সালের ১৫ নভেম্বর মায়ানমার সরকারের সাথে শান্তি চুক্তি সম্পাদনের ফলে সংগঠনের সশস্ত্র গ্রুপটি অস্ত্র সমর্পনে চলে যাবে। এই সুযোগে সংগঠটির কাছ থেকে জেএসএস বিপুল পরিমান অর্থের বিনিময়ে অস্ত্রগুলো কিনে রাখার চেষ্টা চালাচ্ছে। অখচ সামরিক সাখার প্রধান বোগ্রী, বো মাংচো, মোখ্যাই, থোয়্ইনি,সাইওয়ং এদের সাথে এএলপি দলত্যাগী ও রেমাক্রী ইউপি‘র জেএসএস সভাপতি চসিংমং এর ভগ্নিপতি শৈমংসাই সর্বদায় যোগাযোগ রক্ষা করে চলেছে। আগামী ১৫/২০ দিনের মধ্যে কয়েক ধাপে ৩০/৩৫টি অস্ত্র ঔঝঝ সামরিক শাখার বিগ্রেডিয়ার ক্ষেত্র বাবু ওরফে উমেশ চাকমা গ্রুপের কাছে হস্থান্তর করতে পারে বলেও গোয়েন্দা তথ্যে জানা যায়। ক্ষেত্র বাবু বর্তমানে রুমা-বোলি পাড়ার দিকে সীমান্ত এলাকায় ১০/১১জনের একটি দল নিয়ে অবস্থান করছে বলেও জানা যায়।

জনসংহতি সমিতির উচ্চ পর্যায়ে নিতিনির্ধারকের নির্দেশে বান্দরবানের নেতারা তাদের আধিপত্য বিস্তার ও রাঙ্গামাটি খাগড়াছড়ি মত সাম্প্রদায়িক সংঘাট সৃষ্টির লক্ষে গুম, খুন, অপহরণ, চাঁদাবাজীসহ নানান আপকর্মের কৌশল চালিয়ে যেতে নির্দেশ দিচ্ছেন।

থানচি সাঙ্গু রিজার্ভ ফরেষ্ট এর শত শত বছরের সংরক্ষীত মূল্যবান মাদার ট্রি চম্পা, করই, গর্জন, জারুল, চাপালিশসহ বিভিন্ন প্রজাতির গাছ কেটে যেমনি ধংস করছে পানির উৎস তেমনি বিনষ্ট করছে শত কোটির টাকার প্রকৃতিক সম্পদ, জলবায়ু ও পরিবেশ ও প্রকৃতির জীব বৈচিত্র। আর এই অবৈধ কাঠ বিক্রি‘র লব্ধঅর্থ দিয়ে জেএসএস কিনবে অস্ত্র, বাড়াবে দেশের অশান্তি আর সংঘাটময় পরিবেশ।

Please follow and like us:
0

Related posts

Leave a Comment