তথ্য অধিকার আইন মানছে না পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড

ক্রাইম নিউজ সার্ভিস, বান্দরবান: সরকারি ও বেসরকারি উন্নয়ন কাজে জবাবদিহিতা ও স্বচ্ছতার নিশ্চিতের লক্ষ্যে তথ্য কমিশন ও সরকারের নির্দেশনায় সারাদেশে তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা নিয়োজিত থাকলেও পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের রাঙ্গামাটির প্রধান কার্যালয় ব্যতীত বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি জেলা ইউনিট অফিসে সেই পদ সৃষ্টি করা হয়নি এখনও।

২০০৯ সাল থেকে মন্ত্রণালয়, অধিদপ্তর, পরিদপ্তর, বিভাগ, জেলা, উপজেলা এবং ইউনিয়ন পর্যায়ে সরকারি ও বেসরকারি প্রতিষ্ঠানসমুহে তথ্য অধিকার আইনের আওতায় চাহিদা মতে প্রয়োজনীয় তথ্য পেতে একজন করে তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা নিয়োজিত রয়েছেন। কিন্তু পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের জেলা ভিত্তিক ইউনিট অফিস সমূহে সেই পদও সৃষ্টি করা হয়নি এবং কোন কর্মকর্তাকে দায়িত্বও প্রদান করা হয়নি। তবে উন্নয়ন বোর্ডের রাঙ্গামাটিস্থ প্রধান কার্যালয়ে একজন তথ্য কর্মকর্র্তা রয়েছেন।

বান্দরবান ও খাগড়াছড়ি জেলায় পার্বত্য চ্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ডের কার্যক্রম বিষয়ক কোন তথ্য পাচ্ছেন না স্থানীয় সাংবাদিকসহ নাগরিকরা। তথ্য অধিকার আইন মানছেন না পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড। এই দুই জেলার প্রকৌশলী এবং কর্মকর্তারা বলছেন, তাদের প্রধান কার্যালয় ছাড়া কোন তথ্য প্রদান করা তাদের পক্ষে সম্ভব নয়।

যে কোন তথ্যের জন্যে সরাসরি রাঙ্গামাটির প্রধান কার্যালয়ে যোগাযোগ করতে হবে। ফলে মিডিয়াকর্মীরা তথ্য পাওয়ার ক্ষেত্রে সমূহ হয়রানি ও আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্ত হচ্ছেন বলে অভিযোগ উঠেছে। প্রতিদিনই মিডিয়াকর্মীসহ নাগরিকরা তথ্য পাবার জন্যে যাচ্ছেন উন্নয়ন বোর্ডের জেলা বা ইউনিয়ন অফিসগুলোতে, কিন্তু বিব্রতকর অবস্থায় পড়তে হচ্ছে তাদের তথ্য না পেয়ে।

বান্দরবানের সিনিয়র সংবাদকর্মী এনামূল হক কাশেমী জানান, বুধবার সকালে উন্নয়ন বোর্ডের বান্দরবান ইউনিট অফিসে তথ্য সংগ্রহের জন্য গিয়ে  খালি হাতে ফিরতে হয়েছে। রাঙ্গামাটি প্রধান কার্যালয়ে যোগাযোগ করতে বলা হয় তাকে।

অন্যদিকে ইউনিট অফিসগুলোর মাঠ পর্যায়ে বাস্তবায়নাধীন ও বাস্তবায়িত উন্নয়ন কর্মকান্ড সম্পর্কে জানার সুযোগ নেই নাগরিকদের। এই সুযোগে বোর্ডের অসাধু কর্মকর্তারা নানামুখি দুর্নীতি ও অনিয়মের আশ্রয় নিচ্ছেন অবাধে। এতে অপরিকল্পিত প্রকল্প কার্যক্রম এবং জনমত বিরোধী অস্বচ্ছ প্রকল্পগ্রহণ ও বাস্তবায়নের নামে রাষ্ট্রীয় কোষাগারের অঢেল অর্থ লুটপাট বা বেহাত হয়ে যাচ্ছে বলে অভিযোগ করেছেন বাঘমারা এলাকার স্থানীয় ব্যবসায়ী সুনীল বড়ুয়া। তিনি আরো বলেন, জনকল্যাণে আসছে না বহু কথিত উন্নয়ন প্রকল্পও, ভেস্তে যাচ্ছে এসব প্রকল্প। এ সুযোগে বোর্ডের কর্মকর্তারাও জবাবদিহি থেকে পার পেয়ে যাচ্ছেন দিব্যি। উন্নয়ন বোর্ডের উন্নয়ন কর্মকান্ডের কোন জবাবদিহি ব্যবস্থা না থাকায় সরকারি ক্রয়নীতিমালাও এ খানে মারখাচ্ছে বলেও জানান সুনীল।

জানা গেছে, পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড তিন পার্বত্য জেলার ২৫টি উপজেলায় উন্নয়ন প্রকল্পগুলোর বিভিন্ন খাতে বছরে কমপক্ষে শত কোটি টাকা ব্যয় করে থাকে।

এ প্রসংগে উন্নয়ন বোর্ডের প্রধান কার্যালয়ে তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা ফাওজিয়া আনোয়ার বলেন, মূলত পার্বত্য চট্টগ্রাম উন্নয়ন বোর্ড একটাই। একারনে ইউনিট অফিসগুলোতে তথ্য প্রদানকারী কর্মকর্তা নিয়োগ দেয়া হয় না। তথ্য পেতে সংশ্লিষ্ট ইউনিট অফিসে নির্বাহী প্রকৌশলীর সাথে যোগাযোগ করার জন্য পরামর্শ দেয়া হয়।

এই সংক্রান্ত আরো নিউজ

Leave a Comment